হজ্জের ইতিহাস : পার্ট ১ | হজ্জের গুরুত্ব ও ফজিলত

হজ্জের ইতিহাস পার্ট ১
হজ্জের ইতিহাস পার্ট ১ হজ্জের গুরুত্ব ও ফজিলত

হজ্জের ইতিহাস : পার্ট ১ | হজ্জ শব্দের অর্থ কি?

হজের রয়েছে একটি চমৎকার ইতিহাস, আছে তার তাৎপর্য ও শিক্ষা। ইসলামের বর্ণনা ও হজ্জের ইতিহাস অনুসারে জানা যায় আজ থেকে প্রায় সাড়ে চার হাজার বছর আগে আল্লাহর নির্দেশে হজরত ইবরাহিম (আ.) সর্বপ্রথম হজের প্রবর্তন করেন।

হজ্ব শব্দের আভিধানিক অর্থ:

“ইচ্ছা” বা “সংকল্প” একটি যাত্রায় অংশ নেওয়া, নিয়ত করা, দর্শন করা, এরাদা করা, গমন করা, ইচ্ছা করা, প্রতিজ্ঞা করাসহ যে কোনো মহৎ কাজের ইচ্ছা করা।

হজ্ব এর পারিভাষিক অর্থ:

শরিয়তের পরিভাষায় নির্দিষ্ট দিনে নিয়তসহ ইহরামরত অবস্থায় আরাফার ময়দানে অবস্থান করা এবং বায়তুল্লাহ শরীফ তাওয়াফ করা।

আবার কেউ বলেন:

জিলহজ্বের ৯ তারিখ ইহরাম বেঁধে আরাফাতের মাঠে অবস্থানসহ কয়েকটি নির্দিষ্ট স্থানে নির্ধারিত কয়েকটি আমল যথাযথভাবে আদায় করে কাবা গৃহ তাওয়াফ করাকে হজ্ব বলে।

হজ্ব বা হজ্জ বা হজ আরবি: حج‎‎ ইসলাম ধর্ম পালনকারী অর্থাৎ মুসলমানদের জন্য একটি বুনয়াদী ইবাদত।

এটি ইসলাম ধর্মের স্তম্ভ সমূহের বিশেষ একটি স্তম্ভ। যেমন হাদিসে ইরশাদ হয়েছে:

بني الإسلام على خمس: شهادة أن لا إله إلا الله وأن محمداً رسول الله،

وإقامة الصلاة، وإيتاء الزكاة، وصوم رمضان، وحج البيت من استطاع إليه سبيلا

হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে উমর রাযি: হতে বর্ণিত আছে তিনি বলেন; রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন:

পাঁচটি জিনিসের উপর ইসলামের ভিত্তি স্থাপন করা হয়েছে। এগুলো হলো:

১. আল্লাহ ব্যতীত কোন ইলাহ নেই এবং মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তার বান্দাহ ও রাসূল একথার সাক্ষ্য দেয়া। ২. নামাজ কায়েম করা। ৩. যাকাত দেয়া। ৪. হজ্জ করা। ৫. রমজান মাসের রোজা রাখা।

হজ করা কাদের উপর ফরজ? হজ্জের ইতিহাস কি বলে? 

শারীরিক ও আর্থিকভাবে সক্ষম প্রত্যেক মুসলমান নর-নারীর জন্য জীবনে একবার হজ সম্পাদন করা আবশ্যিক।

আরবি জিলহজ মাসের ৮ থেকে ১২ তারিখ হজের জন্য নির্ধরিত সময়।

হজ পালনের জন্য বর্তমান সৌদি আরবের মক্কা নগরী এবং সন্নিহিত মিনা, আরাফাত, মুযদালিফা প্রভৃতি স্থানে গমন এবং অবস্থান আবশ্যক।

হজ হ’ল মুসলিম জনগণের সংহতি, এবং আল্লাহর নিকটে তাদের আনুগত্যের প্রদর্শনী। যিনি হজ সম্পাদনের জন্য গমন করেন তাকে বলা হয় হাজী বা আলহাজ।

সংক্ষিপ্ত ভাবে হযরত ইবরাহীম আ. এর পরিচয়।

যার ইতিহাস শুরু হয় এ ভাবে:

ইব্রাহিম, ইবরাহীম বা ইব্রাহীম, আরবি: ابراهيم আনুমানিক জন্ম: ১৯০০ খৃষ্ট পূর্বাব্দ থেকে ১৮৬১ খৃষ্ট পূর্বাব্দে।

হযরত ইবরাহীম পশ্চিম ইরাকের বছরার নিকটবর্তী ‘বাবেল’ শহরে জন্মগ্রহণ করেন।

তার পিতার নাম তারাহ বা আজর। যেমন কোরআনে বর্ণিত রয়েছে:

وَإِذْ قَالَ إِبْرَاهِيمُ لأَبِيهِ آزَرَ

তার স্ত্রীর নাম সারাহ ও হাজেরা। তার চার পুত্র ছিলেন: ইসমাইল ও ইসহাক। পুত্র হিসেবে কেবল ইসমাইল ও ইসহাকের বর্ণনাটিই ইতিহাসে প্রসিদ্ধ।

অন্যদের ব্যাপারে ঐতিহাসিক উল্লেখের তেমন কোন প্রমাণ পাওয়া যায় না।

আনুমানিক মৃত্যু:

১৮১৪ খৃষ্ট পূর্বাব্দ থেকে ১৭১৬ খৃষ্ট পূর্বাব্দ, ইসলাম ধর্মের একজন গুরুত্বপূর্ণ নবী ও রাসূল। পবিত্র কুরআনে তার নামে একটি সূরাও রয়েছে।

পুরো কুরআনে অনেকবার তার নাম উল্লেখিত হয়েছে। ইসলাম ধর্মমতে, তিনি মুসলিম জাতির পিতা।

তার পর থেকে নবী-রসুলদের পরম্পরায় চলে আসছে হজ পালনের বিধান।

হজরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সামর্থ্যবান মুসলমানদের ওপর হজ অবশ্যপালনীয় কর্তব্য বলে ঘোষণা দিয়েছেন।

হজ্জের ইতিহাস নিয়ে যে আয়াত নাযিল হয়।

সূরা বাকারার ১২৫ নম্বর আয়াতে কাবাঘর নির্মাণ সম্পর্কিত বিষয় এভাবে ইরশাদ হয়েছে :

وَإِذْ جَعَلْنَا الْبَيْتَ مَثَابَةً لِلنَّاسِ وَأَمْنًا وَاتَّخِذُوا مِنْ مَقَامِ إِبْرَاهِيمَ مُصَلًّى

وَعَهِدْنَا إِلَى إِبْرَاهِيمَ وَإِسْمَاعِيلَ أَنْ طَهِّرَا بَيْتِيَ لِلطَّائِفِينَ وَالْعَاكِفِينَ وَالرُّكَّعِ السُّجُودِ

‘আর আমি যখন কাবাঘরকে মানুষের জন্য সম্মিলন ও নিরাপত্তার স্থান করলাম আর তোমরা ইবরাহিমের দাঁড়ানোর জায়গাকে নামাজের জায়গা বানাও।

আর আমি ইবরাহিম ও ইসমাইলকে আদেশ করলাম ঘরটিকে খুব পবিত্র রেখো তাওয়াফকারী ও অবস্থানকারী লোকদের জন্য এবং রুকু-সিজদাকারীদের জন্য।’

চলবে…

Facebook Comments