একজনের গোসলে কি পরিমান পানি প্রয়োজন।

গোসলে কি পরিমান পানি
গোসলে কি পরিমান পানি

একজনের গোসলে কি পরিমান পানি প্রয়োজন।

পানি আল্লাহ তাআলার বিশেষ নেয়ামত সমূহের মধ্য থেকে একটি নেয়ামত। তাই জানার বিষয় একজনের গোসলে কি পরিমান পানি প্রয়োজন।

কেননা মানুষদেরকে দেখা যায় অযু ও গোসলে অজস্র পরিমাণে পানি অপচয় করতে। যার কারণে অপরকে এই পানির কষ্ট ভোগ করতে হয়।

যেমন যারা ফ্লাট বাসাতে থাকে। তাদের মধ্যে অনেক এমন রয়েছে। যারা গোসলের সময় ঝরনা দেব ছেড়ে দিয়ে অন্য কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়ে।

যার কারণে প্রচুর পরিমাণে পানির অপচয় হয়। আর অপর দিক দিয়ে কোন একজন জরুরী কাজে পানি পায় না। সাথে সাথে এটাও বলুন। অপচয় করার হুকুম কি?

আজ আমরা একজনের গোসলের জন্য কি পরিমান পানি প্রয়োজন এ মাসআলাটি নিয়ে দলিল ভিত্তিক আলোচনা করার চেষ্টা করব। ইনশা-আল্লাহ।

ফতুয়ায়ে রাশিদিয়াতে উল্লেখ রয়েছে স্বাভাবিক গঠন আকৃতির একজন ব্যক্তির জন্য সুন্নত তরিকায় অযু করতে দেড় শের পানির প্রয়োজন আর গোসলের জন্য চার শের।

সঠিকটা আল্লাহ তাআলাই ভালো জানেন।

একজনের গোসলে কি পরিমান পানি প্রয়োজন তার দলিল সমূহ।

قَوْلُهُ: ثُمَّ يُفِيضَنَّ) أَتَى بِثُمَّ لِلْإِشَارَةِ إلَى التَّرْتِيبِ، وَإِنَّمَا لَمْ يَقُلْ ثُمَّ يَتَمَضْمَضُ

وَيَسْتَنْشِقُ ثُمَّ يُفِيضُ لِلْإِشَارَةِ إلَى أَنَّ فِعْلَهُمَا فِي الْوُضُوءِ كَافٍ عَنْ فِعْلِهِمَا فِي الْغُسْلِ

فَالسُّنَّةُ نَابَتْ مَنَابَ الْفَرْضِ ط. وَمَعْنَى يُفِيضُ: يَصُبُّ. قَالَ فِي الدُّرَرِ

حَتَّى لَوْ لَمْ يَصُبَّ لَمْ يَكُنْ الْغُسْلُ مَسْنُونًا وَإِنْ زَالَ الْحَدَثُ اهـ وَهَذَا لَوْ كَانَ فِي مَاءٍ رَاكِدٍ

أَمَّا لَوْ مَكَثَ فِي مَاءٍ جَارٍ قَامَ الْجَرَيَانُ مَقَامَ الصَّبِّ كَمَا عُلِمَ مِمَّا قَدَّمْنَاهُ قَرِيبًا.

قَوْلُهُ: عَلَى كُلِّ بَدَنِهِ زَادَ كُلَّ لِدَفْعِ تَوَهُّمِ عَدَمِ إعَادَةِ غَسْلِ أَعْضَاءِ الْوُضُوءِ لِرَفْعِ الْحَدَثِ عَنْهَا ط

أَقُولُ: لَمْ أَرَ مَنْ صَرَّحَ بِأَنَّهُ يُسَنُّ ذَلِكَ، وَإِنَّمَا يُفْهَمُ ذَلِكَ مِنْ عِبَارَاتِهِمْ

وَنَظِيرُهُ مَا مَرَّ فِي الْوُضُوءِ مِنْ أَنَّهُ يُسَنُّ إعَادَةُ غَسْلِ الْيَدَيْنِ عِنْدَ غَسْلِ الذِّرَاعَيْنِ.

قَوْلُهُ: ثَلَاثًا

الْأُولَى فَرْضٌ وَالثِّنْتَانِ سُنَّتَانِ عَلَى الصَّحِيحِ سِرَاجٌ.

قَوْلُهُ: مُسْتَوْعِبًا أَيْ فِي كُلِّ مَرَّةٍ لِتَحْصُلَ سُنَّةُ التَّثْلِيثِ ط. مَطْلَبٌ فِي تَحْرِيرِ الصَّاعِ وَالْمُدِّ وَالرِّطْلِ

قَوْلُهُ: وَهُوَ ثَمَانِيَةُ أَرْطَالٍ) أَيْ بِالْبَغْدَادِيِّ، وَهِيَ صَاعٌ عِرَاقِيٌّ

وَهُوَ أَرْبَعَةُ أَمْدَادٍ، كُلُّ مُدٍّ رِطْلَانِ، وَبِهِ أَخَذَ أَبُو حَنِيفَةَ

وَالصَّاعُ الْحِجَازِيُّ خَمْسَةُ أَرْطَالٍ وَثُلُثٌ، وَبِهِ أَخَذَ الصَّاحِبَانِ وَالْأَئِمَّةُ الثَّلَاثَةُ

فَالْمُدُّ حِينَئِذٍ رِطْلٌ وَثُلُثٌ، وَالرِّطْلُ مِائَةٌ وَثَلَاثُونَ دِرْهَمًا وَقِيلَ مِائَةٌ وَثَمَانِيَةٌ

وَعِشْرُونَ دِرْهَمًا وَأَرْبَعَةُ أَسْبَاعِ دِرْهَمٍ وَتَمَامُهُ فِي الْحِلْيَةِ. قُلْت

وَالصَّاعُ الْعِرَاقِيُّ نَحْوُ نِصْفِ مُدٍّ دِمَشْقِيٍّ، فَإِذَا تَوَضَّأَ وَاغْتَسَلَ بِهِ فَقَدْ حَصَّلَ السُّنَّةَ.
——–
ص158 – كتاب الدر المختار وحاشية ابن عابدين رد المحتار – سنن الغسل

…………….

ذُكِرَ فِي ظَاهِرِ الرِّوَايَةِ وَأَدْنَى مَا يَكْفِي مِنْ الْمَاءِ لِلِاغْتِسَالِ صَاعٌ لِلتَّوَضُّؤِ بِمُدٍّ.

قَالَ بَعْضُ مَشَايِخِنَا – رَحِمَهُمُ اللَّهُ – كَفَاهُ صَاعٌ إذَا تَرَكَ الْوُضُوءَ

وَأَمَّا إذَا جَمَعَ بَيْنَ الْوُضُوءِ وَالْغُسْلِ فَإِنَّهُ يَتَوَضَّأُ بِالْمُدِّ مِنْ غَيْرِ الصَّاعِ

وَيَغْتَسِلُ بِالصَّاعِ وَقَالَ عَامَّةُ مَشَايِخِنَا – رَحِمَهُمُ اللَّهُ 

الصَّاعُ كَافٍ لِلْغُسْلِ وَالْوُضُوءِ جَمِيعًا وَهُوَ الْأَصَحُّ قَالَ مَشَايِخُنَا

هَذَا بَيَانُ مِقْدَارِ أَدْنَى الْكِفَايَةِ وَلَيْسَ بِتَقْدِيرٍ لَازِمٍ بَلْ إنْ كَفَاهُ أَقَلُّ مِنْ ذَلِكَ نَقَصَ مِنْهُ

وَإِنْ لَمْ يَكْفِهِ زَادَ عَلَيْهِ بِقَدْرِ مَا لَا إسْرَافَ وَلَا تَقْتِيرَ. كَذَا فِي مُحِيطِ السَّرَخْسِيِّ.
——–
ص16 – كتاب الفتاوى الهندية – الباب الثالث في المياه وفيه فصلان

 

Facebook Comments

1 Trackback / Pingback

  1. দোয়ার সময় আসমানে তাকানো কেমন - বাংলা ইসলাম

Comments are closed.