শরীর থেকে অযুর পানি মুছে ফেলা কেমন?

অযুর পানি মুছে ফেলা
অযুর পানি মুছে ফেলা

অযুর পানি মুছে ফেলা কেমন ?

উত্তমরুপে অজু করার পর হাত পা ও অন্যান্য অঙ্গসমূহ থেকে কাপড় ইত্যাদি দ্বারা অযুর পানি মুছে ফেলা শরীয়াতে তার হুকুম কি?

অনেককে দেখা যায় অযুর পর পানি না মুছে তাড়াহুড়া করে মসজিদে প্রবেশ করেই নামাজ শুরু করে দেয়।

যার ফলে কয়েক রাকাত পর্যন্ত দাঁড়ি ইত্যাদি থেকে পানি টপকিয়ে টপকিয়ে পড়তে থাকে। যার কারণে মসজিদের কার্পেট বা ফ্লোর অযুর ব্যবহৃত পানি দ্বারা ভিজে যায় এতে ওই স্থানের হুকুম কি?

আজ আমরা শরীর থেকে অযুর পানি মুছে ফেলা কেমন সে মাসআলাটি নিয়ে বাংলা ইসলাম (Bangla Islam .net) এর পক্ষ থেকে দলিল ভিত্তিক আলোচনা করার চেষ্টা করব। ইনশা-আল্লাহ।

অযু পরিপূর্ণ করার পর হাত পা ও অন্যান্য অঙ্গসমূহ কাপড় ইত্যাদি দ্বারা মুছে ফেলা সহি হাদিস দ্বারা সাবেত আছে। অনুরূপভাবে না মুসার কথাও হাদীসে উল্লেখ আছে।

সুতরাং অযুর পর অঙ্গসমূহ মুছে ফেলা অযু করনেওয়ালার ইচ্ছাধীন থাকবে। হ্যা! অবশ্যই অযু করনেওয়ালা খেয়াল রাখা চাই যখন সে অযুর পানি না মুছবে।

তখন যেন তার শরীর থেকে ঝরা পানি দ্বারা অন্যের কষ্ট না হয়। আর যেহেতু শরীর থেকে ঝরা পানি নাপাক নয়। তাই ঐ পানি দ্বারা মসজিদের ফ্লোর বা কার্পেট নাপাক হবে না।

সঠিকটা আল্লাহ তাআলাই ভালো জানেন।

অযুর পানি মুছে ফেলা কেমন তার দলিল সমূহ।

قَوْلُهُ: وَالتَّمَسُّحُ بِمِنْدِيلٍ ذَكَرَهُ صَاحِبُ الْمُنْيَةِ فِي الْغُسْلِ

وَقَالَ فِي الْحِلْيَةِ: وَلَمْ أَرَ مَنْ ذَكَرَهُ غَيْرَهُ، وَإِنَّمَا وَقَعَ الْخِلَافُ فِي الْكَرَاهَةِ

فَفِي الْخَانِيَّةِ: وَلَا بَأْسَ لِلْمُتَوَضِّئِ وَالْمُغْتَسِلِ

رُوِيَ عَنْ رَسُولِ – صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ – أَنَّهُ كَانَ يَفْعَلُهُ

وَمِنْهُمْ مَنْ كَرِهَ ذَلِكَ وَمِنْهُمْ مِنْ كَرِهَهُ لِلْمُتَوَضِّئِ دُونَ الْمُغْتَسِلِ

وَالصَّحِيحُ مَا قُلْنَا، إلَّا أَنَّهُ يَنْبَغِي أَنْ لَا يُبَالِغَ وَلَا يَسْتَقْصِي فَيُبْقِي أَثَرَ الْوُضُوءِ، عَلَى أَعْضَائِهِ اهـ

وَقَدَّمْنَا عَنْ الْفَتْحِ أَنَّ مِنْ الْمَنْدُوبَاتِ تَرْكُ التَّمَسُّحِ بِخِرْقَةٍ يَمْسَحُ بِهَا مَوْضِعَ الِاسْتِنْجَاءِ

أَيْ الَّتِي يَمْسَحُ بِهَا مَاءَ الِاسْتِنْجَاءِ لِاسْتِقْذَارِهَا

وَلَيْسَ فِيهِ مَا يُفِيدُ تَرْكَ التَّمَسُّحِ بِغَيْرِهَا فَافْهَمْ

قَوْلُهُ: وَعَدَمُ نَفْضِ يَدِهِ لِحَدِيثٍ «لَا تَنْفُضُوا أَيْدِيَكُمْ فِي الْوُضُوءِ، فَإِنَّهَا مَرَاوِحُ الشَّيْطَانِ

ذَكَرَهُ فِي الْمِعْرَاجِ لَكِنَّهُ حَدِيثٌ ضَعِيفٌ كَمَا ذَكَرَهُ الْمُنَاوِيُّ

بَلْ قَدْ ثَبَتَ فِي الصَّحِيحَيْنِ «عَنْ مَيْمُونَةَ – رَضِيَ اللَّهُ عَنْهَا – أَنَّهَا جَاءَتْهُ بِخِرْقَةٍ بَعْدَ الْغُسْلِ فَرَدَّهَا وَجَعَلَ يَنْفُضُ الْمَاءَ بِيَدِهِ» تَأَمَّلْ

——–
ص131 – كتاب الدر المختار وحاشية ابن عابدين رد المحتار – سنن الوضوء

قَوْلُهُ: وَرُجِّحَ لِلْحَرَجِ) لِأَنَّهُ لَوْ قِيلَ بِاسْتِعْمَالِهِ بِالِانْفِصَالِ فَقَطْ لَتَنَجَّسَ ثَوْبُ الْمُتَوَضِّئِ عَلَى الْقَوْلِ بِنَجَاسَةِ الْمَاءِ الْمُسْتَعْمَلِ

وَفِيهِ حَرَجٌ عَظِيمٌ كَمَا فِي غَايَةِ الْبَيَانِ.

قَوْلُهُ: عَفْوٌ اتِّفَاقًا أَيْ لَا مُؤَاخَذَةَ فِيهِ حَتَّى عِنْدَ الْقَائِلِ بِالنَّجَاسَةِ لِلضَّرُورَةِ كَمَا فِي الْبَدَائِعِ وَغَيْرِهَا.

قَوْلُهُ: وَهُوَ طَاهِرٌ إلَخْ رَوَاهُ مُحَمَّدٌ عَنْ الْإِمَامِ وَهَذِهِ الرِّوَايَةُ

هِيَ الْمَشْهُورَةُ عَنْهُ، وَاخْتَارَهَا الْمُحَقِّقُونَ، قَالُوا عَلَيْهَا الْفَتْوَى، لَا فَرْقَ فِي ذَلِكَ بَيْنَ الْجُنُبِ وَالْمُحْدِثِ

وَلَوْ مِنْ جُنُبٍ وَهُوَ الظَّاهِرُ

قَوْلُهُ: وَهُوَ الظَّاهِرُ كَذَا فِي الذَّخِيرَةِ أَيْ ظَاهِرُ الرِّوَايَةِ

وَمِمَّنْ صَرَّحَ بِأَنَّ رِوَايَةَ الطَّهَارَةِ ظَاهِرُ الرِّوَايَةِ وَعَلَيْهَا الْفَتْوَى فِي الْكَافِي وَالْمُصَفَّى كَمَا فِي شَرْحِ الشَّيْخِ إسْمَاعِيلَ
——–
ص201-200 – كتاب الدر المختار وحاشية ابن عابدين رد المحتار – الماء المستعمل

Facebook Comments

1 Trackback / Pingback

  1. পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ কখন কিভাবে শুরু হয়। - বাংলা ইসলাম

Comments are closed.