অযুর উপর অযু কে কখন নুরুন আলা নুর বলা হয়?

অযুর উপর অযু
অযুর উপর অযু

অযুর উপর অযু কে কখন নুরুন আলা নুর বলা হয়?

কোন এক নেককার ব্যক্তি অজু অবস্থায় আজান দিল অতঃপর নতুন করে অযুর উপর অযু করলে নুরুন আলা নুর এর ফজিলত অর্জন হবে কি?

কেননা মাসয়ালার কিতাবে আছে অজু অবস্থায় দুই রাকাত নামাজ পড়ার পর নতুন করে দ্বিতীয়বার অযু করলে সওয়াব অর্জিত হয়।

এখন প্রশ্ন হলো নামাজ ব্যতীত অন্য কোন ইবাদত। যেমন আযানের পর দ্বিতীয়বার নতুন করে অযু করলে সেই ফজিলত ও সওয়াব অর্জিত হবে কি?

আজ আমরা অযুর উপর অযু কে কখন নুরুন আলা নুর বলা হয় সে মাসআলাটি নিয়ে দলিল ভিত্তিক আলোচনা করার চেষ্টা করব। ইনশা-আল্লাহ।

…………………..

প্রথমবার অযু করার পর দ্বিতীয়বার অযু করার দ্বারা নুরুন আলা নুর এর ছোয়াব অর্জিত হয়।

শর্ত হলো প্রথম অযু দ্বারা এমন এবাদত আদায় করতে হবে যা করতে অযু শর্ত। আর অযু ব্যতীত সেই ইবাদত আদায় হয় না।যেমন নামাজ পড়া, সেজদায়ে তেলাওয়াত আদায় করা, কোরআন শরীফ হাতে নিয়ে পড়া ইত্যাদি।

এখন এক অযু দ্বারা যদি এমন ইবাদত না করা হয়। অথবা কোন ইবাদতই করল না। অথবা এমন ইবাদত করল যার জন্য অযু শর্ত নয় বরং উত্তম।

আর এ ধরনের ইবাদত অযু ছাড়াও আদায় হয়ে যায়। যেমন আজান, কোরআন শরীফ মুখস্ত তেলাওয়াত করা, জিকির ইত্যাদি আদায় করা।

উল্লেখিত এবাদত গুলো নুরুন আলা নুর এর পর্যায়ে না হওয়ার কারণে সোয়াব হবে না বরং অপব্যয় হওয়ার কারণে নিষেধ এবং মাকরুহ হবে।

সঠিকটা আল্লাহ তাআলাই ভালো জানেন।

অযুর উপর অযু কে কখন নুরুন আলা নুর বলা হয় তার দলিল সমূহ।

قُلْت: لَكِنْ يَرِدُ مَا فِي شَرْحِ الْمُنْيَةِ الْكَبِيرِ حَيْثُ قَالَ

وَفِيهِ إشْكَالٌ لِإِطْبَاقِهِمْ عَلَى أَنَّ الْوُضُوءَ عِبَادَةٌ غَيْرُ مَقْصُودَةٍ لِذَاتِهَا

فَإِذَا لَمْ يُؤَدَّ بِهِ عَمَلٌ مِمَّا هُوَ الْمَقْصُودُ مِنْ شَرْعِيَّتِهِ كَالصَّلَاةِ وَسَجْدَةِ التِّلَاوَةِ وَمَسِّ الْمُصْحَفِ

يَنْبَغِي أَنْ لَا يُشْرَعَ تَكْرَارُهُ قُرْبَةً؛ لِكَوْنِهِ غَيْرَ مَقْصُودٍ لِذَاتِهِ فَيَكُونُ إسْرَافًا مَحْضًا

وَقَدْ قَالُوا فِي السَّجْدَةِ لَمَّا لَمْ تَكُنْ مَقْصُودَةً: لَمْ يُشْرَعْ التَّقَرُّبُ بِهَا مُسْتَقِلَّةً وَكَانَتْ مَكْرُوهَةً، وَهَذَا أَوْلَى. اهـ.

…………………..

أَقُولُ: وَيُؤَيِّدُهُ مَا قَالَهُ ابْنُ الْعِمَادِ فِي هَدِيَّتِهِ. قَالَ فِي شَرْحِ الْمَصَابِيحِ

وَإِنَّمَا يُسْتَحَبُّ الْوُضُوءُ إذَا صَلَّى بِالْوُضُوءِ الْأَوَّلِ صَلَاةً، كَذَا فِي الشِّرْعَةِ وَالْقُنْيَةِ. اهـ

وَكَذَا مَا قَالَهُ الْمُنَاوِيُّ فِي شَرْحِ الْجَامِعِ الصَّغِيرِ لِلسُّيُوطِيِّ عِنْدَ حَدِيثِ

مَنْ تَوَضَّأَ عَلَى طُهْرٍ كُتِبَ لَهُ عَشْرُ حَسَنَاتٍ

مِنْ أَنَّ الْمُرَادَ بِالطُّهْرِ الْوُضُوءُ الَّذِي صَلَّى بِهِ فَرْضًا أَوْ نَفْلًا

كَمَا بَيَّنَهُ فِعْلُ رَاوِي الْخَبَرِ وَهُوَ ابْنُ عُمَرَ، فَمَنْ لَمْ يُصَلِّ بِهِ شَيْئًا لَا يُسَنُّ لَهُ تَجْدِيدُهُ. اهـ

وَمُقْتَضَى هَذَا كَرَاهَتُهُ، وَإِنْ تَبَدَّلَ الْمَجْلِسُ مَا لَمْ يُؤَدِّ بِهِ صَلَاةً أَوْ نَحْوَهَا

لَكِنْ ذَكَرَ سَيِّدِي عَبْدِ الْغَنِيِّ النَّابْلُسِيُّ أَنَّ الْمَفْهُومَ مِنْ إطْلَاقِ الْحَدِيثِ مَشْرُوعِيَّتُهُ

وَلَوْ بِلَا فَصْلٍ بِصَلَاةٍ أَوْ مَجْلِسٍ آخَرَ، وَلَا إسْرَافَ فِيمَا هُوَ مَشْرُوعٌ

أَمَّا لَوْ كَرَّرَهُ ثَالِثًا أَوْ رَابِعًا فَيُشْتَرَطُ لِمَشْرُوعِيَّتِهِ الْفَصْلُ بِمَا ذُكِرَ

وَإِلَّا كَانَ إسْرَافًا مَحْضًا اهـ فَتَأَمَّلْ. مَطْلَبٌ كَلِمَةُ لَا بَأْسَ قَدْ تُسْتَعْمَلُ فِي الْمَنْدُوبِ
——–
ص119 – كتاب الدر المختار وحاشية ابن عابدين رد المحتار – سنن الوضوء

……………………….

فالعبادة المقصودة بذاتها، هي التي أراد الشرع فعلها من المكلف بخصوصها

ولا يجزئه منها أن يدرجها في عبادة أخرى, وهذا هو أكثر العبادات

مثل الصلاة, والصيام, والحج مثلا, وحصرها بالأسماء متعذر لكثرتها

فما من العبادات يمكن أن يندرج في غيره، فهو غير مقصود بذاته

مثال ذلك تحية المسجد، فإنها غير مقصودة بذاتها، وإنما المقصود شغل البقعة بالصلاة

وكذلك سنة الوضوء, فيجزئ عنها كل صلاة بعد الوضوء

لأن ذلك هو المقصود منها جاء في الموسوعة الفقهية

إِنْ أَشْرَكَ عِبَادَتَيْنِ فِي النِّيَّةِ، فَإِنْ كَانَ مَبْنَاهُمَا عَلَى التَّدَاخُل

كَغُسْلَيِ الْجُمُعَةِ وَالْجَنَابَةِ، أَوِ الْجَنَابَةِ وَالْحَيْضِ، أَوْ غُسْل الْجُمُعَةِ وَالْعِيدِ

أَوْ كَانَتْ إِحْدَاهُمَا غَيْرَ مَقْصُودَةٍ، كَتَحِيَّةِ الْمَسْجِدِ مَعَ فَرْضٍ أَوْ سُنَّةٍ أُخْرَى

فَلاَ يَقْدَحُ ذَلِكَ فِي الْعِبَادَةِ، لأِنَّ مَبْنَى الطَّهَارَةِ عَلَى التَّدَاخُل، وَالتَّحِيَّةُ وَأَمْثَالُهَا غَيْرُ مَقْصُودَةٍ بِذَاتِهَا

بَل الْمَقْصُودُ شَغْل الْمَكَانِ بِالصَّلاَةِ، فَيَنْدَرِجُ فِي غَيْرِهِ

أَمَّا التَّشْرِيكُ بَيْنَ عِبَادَتَيْنِ مَقْصُودَتَيْنِ بِذَاتِهَا، كَالظُّهْرِ وَرَاتِبَتِهِ

فَلاَ يَصِحُّ تَشْرِيكُهُمَا فِي نِيَّةٍ وَاحِدَةٍ، لأِنَّهُمَا عِبَادَتَانِ مُسْتَقِلَّتَانِ، لاَ تَنْدَرِجُ إِحْدَاهُمَا فِي الأْخْرَى. انتهى.

Facebook Comments

1 Trackback / Pingback

  1. অযুর অতিরিক্ত পানি পান করার হুকুম। - বাংলা ইসলাম

Comments are closed.